অস্থির সমাজে উন্নয়ন ও সামাজিক অস্থিরতা

//অস্থির সমাজে উন্নয়ন ও সামাজিক অস্থিরতা

অস্থির সমাজে উন্নয়ন ও সামাজিক অস্থিরতা

একটি টকশো এবং আজকের কলাম
গত সপ্তাহের কলামে একদম শুরুতে এবং একদম শেষে, একটি টকশো’র প্রসঙ্গে আলোচনা করেছিলাম বা রেফারেন্স দিয়েছিলাম। সেটি ৩ জুলাই ২০১৯ প্রচারিত হয়েছিল চ্যানেল আই’র টকশো অনুষ্ঠান ‘তৃতীয় মাত্রা’। অতিথি আলোচক ছিলাম আমরা দু’জন চট্টগ্রামের সন্তান। ওইদিনের আলোচনার দ্বিতীয় অংশ ছিল চট্টগ্রামের উন্নয়ন ও সমস্যা নিয়ে। এ নিয়ে আলোচনা করতে গেলেই, একটি বিষয় আলোচনার মধ্যে চলে আসে। সেটি হলো, প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণ। প্রসঙ্গটি আলোচনা করেছি, গত বুধবার ২৪ জুলাই প্রকাশিত কলামে। সে কলামে বলে রেখেছিলাম, ৩ জুলাইয়ের টকশোর আলোচনার প্রথম অংশ আজ আলোচনা করব। প্রথম অংশ কী প্রসঙ্গে ছিল? উপস্থাপক জিল্লুর রহমান আলোচনার জন্য প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছিলেন যে, বাংলাদেশে প্রভূত উন্নয়ন হচ্ছে। কিন্তু এই উন্নয়ন কি দেশের বা সমাজের বা জনগোষ্ঠীর জীবনের সব আঙ্গিকে হচ্ছে, বা অপর ভাষায় : চলমান অর্থনৈতিক উন্নয়নের সাথে বাংলাদেশের মানুষের জীবনের অন্যান্য আঙ্গিকের উন্নয়নের সম্পর্ক কী? বিভিন্নমুখী উন্নয়ন বা বিভিন্ন আঙ্গিকের উন্নয়নের মধ্যকার সম্পর্কটা নিয়ে সেদিন আমরা টকশোতে আলোচনা করেছিলাম। সেই আলোচনার হুবহু রূপ আজকের কলামে দিতে পারছি না অত্যন্ত স্বাভাবিক একটি কারণে, তথা ভুলে যাওয়ার দরুন। কিন্তু মোটা দাগে কথাগুলো মনে আছে। জুলাই মাসের ৩ তারিখের পর, বিশেষত গত ১২-১৪ দিনে, আমাদের এই বাংলাদেশে অনেক কিছু ঘটে গেছে। অতএব, আজকের আলোচনায় সেই ঘটনাগুলোর প্রভাব পড়বেই।

উন্নয়ন প্রসঙ্গ ও মেগা প্রকল্প
সমসাময়িক বিশ্বে বাংলাদেশের বর্তমান অর্থনৈতিক উন্নয়ন একটি আলোচিত বিষয়। দেশে অর্থনৈতিক উন্নয়ন হচ্ছে না বললে ভুল হবে। কিন্তু এই উন্নয়নটি একটি সুনির্দিষ্ট খাতে বেশি, যথা ভৌত কাঠামোসংশ্লিষ্ট উন্নয়ন। আরেকটু খোলাসা করে বললে, সড়কপথের উন্নয়ন, বিমানবন্দরের উন্নয়ন, দু-একটি ভারী শিল্পের উন্নয়ন, সমুদ্রবন্দর সৃষ্টি, নৌবন্দরের সংস্কার, নদীর ওপর সেতু নির্মাণ, বিদ্যুৎ উৎপাদনের কারখানা নির্মাণ ইত্যাদি। উন্নয়ন প্রসঙ্গে পদ্মা সেতুর নাম না নিলে অন্যায় হবে। কিন্তু ৩৫ বা ৩২ বছর আগে এত নিবিড় প্রচারণার সুযোগ ছিল না। সেই সময় যমুনা নদীর উপরে যমুনা সেতু নির্মিত হয়েছিল কিন্তু এত ঢাকঢোল পেটানো হয়নি। তখন এরশাদ সাহেবের আমল। যমুনার মতো বিশাল নদীর ওপর ব্রিজ নির্মাণ বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য ও নির্মাণ অভিজ্ঞতার ক্ষেত্রে মাইলফলক ছিল এবং বাংলাদেশের পরিকল্পনাবিদদের জন্য আত্মবিশ্বাস সৃষ্টিতেও মাইলফলক ছিল, যার ওপর ভিত্তি করে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা সহজতর হয়েছে। ঈশ্বরদীতে রূপপুর নিউক্লিয়ার প্ল্যান্ট করা হচ্ছে, সুন্দরবন ঘেঁষে রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র করা হচ্ছে; পটুয়াখালিতে পায়রা বন্দর করা হচ্ছে, চট্টগ্রামে কর্ণফুলী নদীর মোহনায় ভূগর্ভস্থ টানেল সড়ক নির্মিত হচ্ছে। সুতরাং দেশ একদম বসে নেই। এগুলো মেগা প্রকল্প। এরকম আরো মেগা প্রকল্প আছে মানে বিরাট মাত্রার বিনিয়োগ ও বিশাল সময় ধরে কর্মযজ্ঞ; অনেক কেনাকাটা। যেটা বলা হয় না, স্বীকার করা হয় না, সেটা হলো, মেগা প্রকল্পের অন্যতম সহযোগী ‘মেগা দুর্নীতি’।

মেগা প্রকল্প মানেই মেগা দুর্নীতি
মেগা দুর্নীতি মানে বড় আকারের দুর্নীতি। কত বড় দুর্নীতি সেটা, মাত্র দুই-তিনটি বাক্য দিয়ে বোঝাতে পারব না। টাকার অঙ্কে সেই দুর্নীতির পরিমাণ কী, সেটি সম্মানিত পাঠকদের হাতের স্মার্ট ফোনের ক্যালকুলেটরে গোনা যাবে না; কারণ, সেই টাকার অঙ্ক ক্যালকুলেটরের সক্ষমতা থেকে অনেক বড়। মেগা প্রকল্পের সাথে জড়িত দুর্নীতিগুলোতে খুব বড় প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিরা জড়িত থাকেন; এই দুর্নীতির জন্য খুব সুন্দর সুন্দর ছলনা বাহানা এবং কৌশলের আশ্রয় নেয়া হয়। বাংলাদেশের বেশির ভাগ মানুষই বিশ্বাস করেন যে, বড় বড় প্রকল্পগুলোতে মূল্যস্ফীতি ঘটানো হয় দুর্নীতির জন্য। দেশের বেশির ভাগ মানুষই বিশ্বাস করেন, যেহেতু বড় বড় ব্যক্তিরা, বড় বড় দায়িত্বশীলরা জেনেশুনে, বুঝেশুনে, চিন্তা-ভাবনা করে, গুছিয়ে-গাছিয়ে, পরিকল্পিতভাবে মেগা দুর্নীতি করে থাকেন, সেহেতু মধ্য বা নিম্নস্তরে মেগা প্রকল্পের সাথে জড়িত ব্যক্তিরা দুর্নীতি করতে উৎসাহিত হন এবং প্রেরণা পান, দুর্নীতির আবহে তারা স্বাচ্ছন্দ্যে শ্বাস-প্রশ্বাস গ্রহণ করেন। 
এই অনুচ্ছেদের উপসংহার হলো, একটি দেশের উন্নতি লাগবেই, উন্নতি করতে গেলে নীতিনির্ধারণ করতে হবে, উন্নতি করতে গেলে ফান্ড সংগ্রহ করতে হবে। এ দেশের সব সরকারের আমলেই দুর্নীতি ছিল; শুধু আফসোসের বিষয় হলো, বর্তমান আমলে তথা বিগত দশ বছরে সেই দুর্নীতির প্রবণতা এবং মাত্রা অতীতের সব সীমা ও কল্পনাকে ছাড়িয়ে গেছে। দুর্নীতি বলতে শুধু আর্থিক দুর্নীতি বোঝায় না। ৩ জুলাই চ্যানেল আই’র টকশোতে আলোচনা করতে গিয়ে শিক্ষায় দুর্নীতি, সামাজিক দুর্নীতি এবং মানুষের মধ্যে নৈতিকতার অবক্ষয় প্রসঙ্গ এনেছিলাম। আজকের কলামের নৈতিকতার অবক্ষয় এবং সামাজিক অস্থিরতার প্রসঙ্গে আলোচনা করব।

দু’টি প্রধান আঙ্গিক
ব্যক্তিগত পর্যবেক্ষণে ও মূল্যায়নে, বাংলাদেশে এ মুহূর্তে এমন কোনো পেশা নেই যেখানে আর্থিক বা নৈতিক দুর্নীতি হচ্ছে না, কম বা বেশি হোক। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে তা বেশিই হচ্ছে। আমি পুনশ্চ লিখছি, জেনেশুনেই লিখছি যে, এমন কোনো পেশা বা কর্মক্ষেত্র নেই যেখানে আর্থিক বা নৈতিক দুর্নীতি হচ্ছে না। ‘আর্থিক দুর্নীতি’ বলতে আমরা বুঝি অবৈধভাবে উপার্জন, গোপনীয়ভাবে সেই অবৈধ টাকার সংরক্ষণ এবং সুযোগ বুঝে তার খরচ। আর্থিক দুর্নীতির অন্যতম জ্বলন্ত উদাহরণ, বর্তমান উদাহরণটি হচ্ছে, শেয়ার কেলেঙ্কারি। ঘটনাক্রমে তথা ইংরেজি পরিভাষায় কো-ইনসিডেনটালি, আওয়ামী লীগ সরকারের আমলেই এই শেয়ার কেলেঙ্কারিগুলো হতে দেখা যাচ্ছে। ১৯৯৭-৯৮ সালে হয়েছে; ২০১০-১১ সালে হয়েছে এবং ২০১৯ সালেও হচ্ছে। ‘শেয়ার কেলেঙ্কারি’ মানে হলো লাখ লাখ সাধারণ বিনিয়োগকারীকে পথে বসানো; মানে হলো, প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষমতা ব্যবহার করে, অদূরদর্শিতা ও অদক্ষতার বাহানা করে, কূটবুদ্ধি ব্যবহার করে কিছু শেয়ারের দরপতন ঘটাতে থাকা; পতনশীল শেয়ারগুলো সঙ্ঘবদ্ধভাবে কম দামে কেনা এবং পরবর্তী সময়ে এগুলোকে উচ্চমূল্যে বিক্রি করা। সফল শেয়ার কেলেঙ্কারির অন্যতম উপাদান হলো কেলেঙ্কারির নায়কদের ক্ষমতাসীন অথবা ক্ষমতার সাখে সম্পর্কিত হতে হবে এবং অবশ্যই বুদ্ধিমান হতে হবে। এই কেলেঙ্কারির কোনো বিচার বাংলাদেশে হয়নি। শেয়ার কেলেঙ্কারির কারণে শোকাহত বা বিক্ষুব্ধ পরিবারের সংখ্যা এক কোটির উপরে। এই এক কোটি পরিবারের সদস্যরা নীরবে চোখের পানি ফেলেন; কিন্তু সুযোগ পেলেই মনে মনে বা প্রকাশ্যে কেলেঙ্কারির মহানায়কদের নাম ধরে, ক্ষমতাসীনদের নাম ধরে গালি এবং বদ দোয়া দিতে থাকেন। আজ থেকে আট বা নয় দিন আগে বাংলাদেশের সব পত্রপত্রিকায় শেয়ার কেলেঙ্কারি প্রসঙ্গে শিরোনাম হয়েছে। শুধু একটি শিরোনাম এখানে উদ্ধৃত করছি। তা হলো : ‘একদিনে পাঁচ হাজার কোটি টাকা হাওয়া।’ এই টাকাগুলোর মালিক ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা। সুতরাং যাদের টাকা লুটপাট করে ফেলা হলো, তারা কি স্থিরচিত্তে সমাজে বসবাস করছেন, নাকি অস্থিরচিত্তে দিনযাপন করছেন?

বিক্ষুব্ধ চিত্ত ও অস্থির সমাজ
সম্মানিত পাঠক, নিজেকে নিজে প্রশ্ন করুন, এ ধরনের শোকাহত বিক্ষুব্ধ মানুষগুলোর মন কি স্থির, নাকি অস্থির? এতক্ষণ শেয়ার কেলেঙ্কারির কথা বললাম, বাকি কেলেঙ্কারি তথা ব্যাংক থেকে টাকা লুটপাট এবং টাকা পাচারের কোনো কথা আজকের কলামে লিখছি না। আর্থিক দুর্নীতির উল্লেখযোগ্য চারটি কারণ : এক. লোভ-লালসা। দুই. ধনী হওয়ার জন্য অসুস্থ প্রতিযোগিতা। তিন. লেখাপড়ার বা জ্ঞান অর্জনের প্রতি বা জ্ঞানী লোকদের বা শিক্ষিতদের পেশার প্রতি মানুষের মনে অসম্মানের মনোভাব সৃষ্টি এবং টাকাওয়ালাদের প্রতি, বড় বড় গাড়ি-বাড়িওয়ালাদের মতো হওয়ার জন্য মানুষের মনে আকর্ষণ। চার. সরকারি কর্মকর্তারা তাদের বৈধ আয়ের মধ্যে চলতে চেষ্টা না করে, ব্যবসায়ী শিল্পপতিদের মতোই বেপরোয়া জীবনযাপনের প্রতি আগ্রহী হওয়া; এরূপ জীবনযাপন করতে হলে অবৈধ আর্থিক উপার্জন ছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই। এ ধরনের প্রবণতা একদিনে শুরু হয়নি। এ প্রবণতা পাকিস্তান আমলেও কিছুটা ছিল। দুঃখের বিষয়, এ ধরনের প্রবণতা নতুন করে গতি পায় মুক্তিযুদ্ধের পরে স্বাধীন বাংলাদেশে। তবে সব সরকারের আমলেই এ প্রবণতা পৃষ্ঠপোষকতা পেয়েছে। পুঁজিবাদী অর্থনীতির অন্যতম অনুষঙ্গ হলো, আর্থিক ও নৈতিক দুর্নীতি। আমরা পুঁজিবাদী অর্থনীতিকে ধারণ করেছি কিন্তু সেটার কোনো প্রতিষেধক চিন্তা করিনি। অর্থাৎ আমরা নৈতিকতাকে বর্জন করেছি। এই কাহিনী, এই প্রবণতা, এই রেওয়াজ প্রধানত ১৯৭২ থেকে শুরু। ছোট চারাগাছ থেকে ক্রমান্বয়ে বড় হতে হতে এখন ২০১৯ সালে এসে এটা প্রবাদপ্রতিম বটগাছে পরিণত হয়েছে।

ভালোমন্দের সরকারি কৃতিত্ব ও দায়িত্ব
পাঁচ-সাত বছর বা আট-দশ বছর আগে বা তারও আগে টেলিভিশন টকশোতে বা পত্রিকার কলামে ধর্মনিরপেক্ষতাবাদী সামরিক বাহিনীবিদ্বেষী ব্যক্তিরা প্রায়ই একটি বাক্য বা কথা বা তার মর্ম ব্যবহার করতেন; তাহলো- সামরিক সরকারগুলো বাংলাদেশ শাসন করেছে; তারা বাংলাদেশের সংবিধানকে ক্ষতবিক্ষত করেছে এবং তারা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ভূলুণ্ঠিত করে দেশটাকে অধঃপতনে নিয়ে গেছে। সম্মানিত পাঠক, আপনাদের গণনার সুবিধার্থে বাংলাদেশের মেয়াদগুলো লিখে দিচ্ছি। অতঃপর আপনারা গুনে নেবেন কোন শাসক বা কোন রাজনৈতিক দল কোন কোন মেয়াদে শাসন করেছেন। এসব শাসনকারী ব্যক্তি বা দল যেমন উন্নয়নের কৃতিত্ব নেবেন তেমনই অধঃপতনগুলোর দায়িত্বও নিতে হবে। (ক) ১৯৭২ সালের জানুয়ারি থেকে ১৯৭৩ সালের মার্চ : আওয়ামী লীগ : বঙ্গবন্ধুর আমল : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (খ) ১৯৭৩ সালের মার্চ থেকে ১৯৭৫ সালের জানুয়ারি : আওয়ামী লীগ : বঙ্গবন্ধুর আমল : প্রধানমন্ত্রী পদ্ধতির সরকার। (গ) ১৯৭৫ এর জানুয়ারি থেকে ১৯৭৫-এর আগস্ট : বাকশাল : বঙ্গবন্ধুর আমল : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (ঘ) ১৯৭৫ সালের আগস্ট থেকে ১৯৭৫ সালের ৫ নভেম্বর : আওয়ামী লীগ : মোশতাক আমল : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (ঙ) ১৯৭৫-এর নভেম্বর থেকে ১৯৭৭ : দলবিহীন সামরিক আইন শাসন : প্রথমে রাষ্ট্রপতি বিচারপতি আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম, পরে রাষ্ট্রপতি মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (চ) ১৯৭৮ সাল থেকে ১৯৮১ সালের মে মাস : বিএনপি : জিয়াউর রহমানের আমল : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (ছ) জুন ১৯৮১ থেকে মার্চ ১৯৮২ : বিএনপি : বিচারপতি আবদুস সাত্তারের আমল : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (জ) এপ্রিল ১৯৮২ থেকে মধ্য ১৯৮৬ : সামরিক আইন শাসন : এরশাদ আমল : প্রথমে প্রেসিডেন্ট বিচারপতি আহসান উদ্দিন আহমদ ও পরবর্তীতে জেনারেল এরশাদ : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (ঝ) মধ্য ১৯৮৬ থেকে ডিসেম্বর ১৯৯০ জাতীয় পার্টি : এরশাদ আমল : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতির সরকার। (ঞ) ৭ ডিসেম্বর ১৯৯০ থেকে মার্চ ১৯৯১ তত্ত্বাবধায়ক সরকার : বিচারপতি সাহাবুদ্দীন আহমদ: প্রেসিডেন্ট পদ্ধতি। (ট) মার্চ ১৯৯১ থেকে সেপ্টেম্বর ১৯৯১ বিএনপি আমল : নামকাওয়াস্তে প্রেসিডেন্ট ছিলেন বিচারপতি সাহাবুদ্দীন : প্রধানমন্ত্রী ছিলেন বেগম খালেদা জিয়া : প্রেসিডেন্ট পদ্ধতি : (ঠ) সেপ্টেম্বর ১৯৯১ থেকে মার্চ ১৯৯৬ : বিএনপি আমল : খালেদা জিয়া : প্রধানমন্ত্রী পদ্ধতির সরকার (ড) মার্চ ১৯৯৬ থেকে জুন ১৯৯৬ তত্ত্বাবধায়ক সরকার। (ঢ) জুলাই ১৯৯৬ থেকে জুলাই ২০০১ আওয়ামী লীগ : শেখ হাসিনা : প্রধানমন্ত্রী পদ্ধতির সরকার। (ণ) জুলাই ২০০১ থেকে অক্টোবর ২০০১ তত্ত্বাবধায়ক সরকার। (ত) অক্টোবর ২০০১ থেকে অক্টোবর ২০০৬ বিএনপি : খালেদা জিয়া : প্রধানমন্ত্রী পদ্ধতির সরকার : (থ) ২৭ অক্টোবর ২০০৬ থেকে ১১ জানুয়ারি ২০০৭ তত্ত্বাবধায়ক সরকার। (দ) ১১ জানুয়ারি ২০০৭ থেকে ডিসেম্বর ২০০৮ ওয়ান ইলেভেন তত্ত্বাবধায়ক সরকার : মইনুদ্দিন-ফখরুদ্দীন সরকার। (ণ) জানুয়ারি ২০০৯ থেকে জুলাই ২০১৯ সমান দশ বছর সাত মাস : আওয়ামী লীগ : শেখ হাসিনা : প্রধানমন্ত্রী পদ্ধতির সরকার।

গুজব, খুন-খারাবি
গত ১০-১২ দিন ধরে কয়েকটি খবর প্রাধান্য পাচ্ছে। এক. দেশে বন্যা পরিস্থিতি অবনতিশীল। দুই. পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা লাগবে বলে গুজব এবং এর কারণে খুন-খারাবি। তিন. ছেলেধরা গুজব এবং এর কারণে খুন-খারাবি। চার. মহামারী আকারে ডেঙ্গু জ্বর। পাঁচ. প্রিয়া সাহা নামক জনৈক ভদ্রমহিলা কর্তৃক যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্র, বাংলাদেশী জাতি এবং বাংলাদেশ সরকারকে হেয় করে উসকানিমূলক ও অসত্য অভিযোগ। ছয়. শেয়ার কেলেঙ্কারিতে হিমালয় পর্বতসমান আর্থিক দুর্নীতি। সাত. লন্ডনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার চক্ষু চিকিৎসা।

এখন আমি কয়েক লাইন উপরে উল্লিখিত দু’টি সুনির্দিষ্ট গুজব ও তার প্রসঙ্গে দুটি কথা লিখছি। প্রধান প্রধান পত্রিকাগুলোতে লাল ও কালো কালিতে বড় বড় শিরোনাম হয়েছে। ছয় বছর আগে সাভারের রানা প্লাজা নামক বিল্ডিং বিধ্বস্ত হয়েছিল; তখন বাংলাদেশ সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মন্তব্য করেছিলেন যে, জামায়াত-শিবিরের লোকেরা রানা প্লাজার গেট এবং খাম্বাগুলো ধরে ঝাঁকুনি দেয়াতে বিল্ডিংটা চূড়ান্তভাবে পড়ে গেছে। অতি সম্প্রতি বাংলাদেশ সরকারের কোনো কোনো মন্ত্রী বলছেন, সমাজে অস্থিরতা সৃষ্টির জন্য এসব গুজব ও হত্যাকাণ্ড ঘটানো হচ্ছে এবং বিএনপি-জামায়াত এতে জড়িত। আমি মাঝেমধ্যে হাসি। দেশ চালানোর দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের চিন্তাভাবনা এত ঠুনকো কিভাবে হয়? পদ্মা সেতুতে মানুষের মাথা লাগবে- এই গুজবের সৃষ্টিকর্তা কে বা এই গুজবের উৎপত্তিস্থল কোথায়, কোন দিন, কোন সময়? সেটি আমার পক্ষে নির্ণয় করা সম্ভব নয়; তা সরকারি গোয়েন্দারা করবেন। কিন্তু গুজব যে সৃষ্টি হয়েছিল সেটি বাস্তব। আরো বাস্তব হলো, সরকারের প্রতিক্রিয়া অনেক ধীরগতিতে হয়েছে এবং অনেক কাকতালীয় ঘটনা গুজবের প্রতি সমর্থনের সৃষ্টি হয়েছে। পদ্মা সেতুতে মাথা লাগবে- এই গুজবের সাথে গণপিটুনি দিয়ে মানুষ মেরে ফেলার সম্পর্ক আছে। কতজন কোন জায়গায় কোন সময় মারা গেছে, সেই তথ্যগুলো গুরুত্বপূর্ণ হলেও, তার থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো, কেন এই গণপিটুনির বা খুন-খারাবির পরিস্থিতি সৃষ্টি হলো?

পত্রিকার শিরোনাম ও সম্ভাব্য ব্যাখ্যা
উদাহরণস্বরূপ অনেক পত্রিকার মধ্য থেকে মাত্র তিনটি পত্রিকার শিরোনাম উদ্ধৃত করছি। এক. একটি পত্রিকার শিরোনাম : ‘পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতেই মানুষ হত্যা করা হচ্ছে, বলেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।’ দুই. একটি পত্রিকায় প্রথম পৃষ্ঠায় তিনটি শিরোনাম পাশাপাশি মুদ্রিত করা হয়েছে। যথা : প্রফেসর আনিসুজ্জামান বলেছেন : ‘মানবিক মূল্যবোধের বড় ক্ষয় হয়েছে;’ প্রফেসর সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেছেন, ‘আগে মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে’; সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী বলেছেন, ‘সমাজে অস্থিরতা থাকলে এমন ঘটনা বাড়ে।’ তিন. একটি পত্রিকায় ২৪ জুলাইয়ের শিরোনাম ছিল, ‘সামাজিক অস্থিরতা উঠেছে চরমে।’

সম্মানিত পাঠক, আসুন, আমরা সবাই মিলে বিবেচনা করি বা মূল্যায়ন করতে চেষ্টা করি, কোনটির কারণে কোনটি হলো। প্রশ্নটির একটি : সমাজে অস্থিরতা বিরাজ করছে বিধায়, সমাজের সদস্যরা, তরুণ ও কিশোরেরা মাদকাসক্ত হচ্ছে, অসামাজিক কাজে ও খুন-খারাবিতে জড়াচ্ছে। প্রশ্নটির ভিন্নরূপ : তরুণ ও কিশোরেরা মাদকাসক্ত হচ্ছে বিধায় অসামাজিক কাজ করছে বিধায় খুন-খারাবিতে জড়াচ্ছে বিধায় সমাজে অস্থিরতা বাড়ছে। সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর কথাটি লক্ষ করি : আগে মানুষের আস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে। তিনি বলেছেন, বিভিন্ন কারণে মানুষের মধ্যে এক ধরনের ক্ষোভ ও ক্রোধ জন্মেছে; কিন্তু মানুষ তা প্রকাশের কোনো সুযোগ পাচ্ছে না; এমন অবস্থায় তারা আক্রমণ করার মতো কাউকে সামনে পেলেই ঝাঁপিয়ে পড়ছে; এর মধ্য দিয়ে তাদের ক্ষোভ ও ক্রোধ প্রকাশিত হচ্ছে। প্রফেসর চৌধুরী ব্যবহার করেছেন দু’টি শব্দ : ‘বিভিন্ন কারণে’। বিভিন্ন কারণগুলো উল্লেখ করছি। রাজনৈতিক অসততা, দুর্নীতিবাজদের মনোনয়ন দেয়া, লাখ লাখ মিথ্যা মামলা, পুলিশ কর্তৃক রাজনৈতিক কারণে মানুষের হয়রানি, প্রশাসনের সর্ব অঙ্গের নগ্ন দলীয়করণ, অর্থনীতিতে বেপরোয়া লুটপাট, সরকারি সিনিয়র ব্যক্তিদের অনৈতিকতা ও অশালীনতা, দেশের ‘আবহাওয়া’ থেকে রাজনীতিকে উঠিয়ে নেয়া তথা বি-রাজনীতিকরণ, ছাত্ররাজনীতি টিকিয়ে রাখার নামে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় লুটপাটের ও খুন-খারাবির সুযোগ দেয়া এবং সবশেষে, সাধারণ মানুষের ভোট দিতে না পারা তথা গণতান্ত্রিক অধিকার প্রায় সম্পূর্ণ হরণ করা। সাধারণ মানুষের একটি বিরাট অংশ রাজনীতির প্রতি বিতৃষ্ণ এবং তার মধ্যেও ক্ষমতাসীন রাজনীতির প্রতি চরমভাবে বিক্ষুব্ধ। কিন্তু সেই বিতৃষ্ণা ও বিক্ষুব্ধতা প্রকাশের জায়গা মানুষ পাচ্ছে না।

আগামী সপ্তাহের আলোচনা
খুব কম রাজনৈতিক কর্মী, পত্রিকার কলাম লেখক। অর্থাৎ কলাম লেখার মানে হচ্ছে তাত্ত্বিক ব্যাপার, চিন্তা প্রকাশের ব্যাপার, অন্যকে চিন্তা করতে উৎসাহিত হওয়ার ব্যাপার। অপরপক্ষে রাজনৈতিক কর্মীর কাজ মানুষের সাথে নিবিড়ভাবে মেলামেশা করা, মানুষের সমস্যাগুলো অনুধাবন করা, মানুষকে সাথে নিয়ে ঘরোয়াভাবে অথবা রাজপথে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করা। এই দুইয়ের মধ্যে যোগসূত্র আছে; একটি অপরটির পরিপূরক। কলাম লেখকের পরিচয় ও কর্ম এবং রাজনৈতিক কর্মীর পরিচয় ও কর্ম পরস্পরকে উৎসাহ ও প্রেরণা জোগায়। তাই সারা সপ্তাহ ধরে শুভাকাক্সক্ষীদের কাছ থেকে আবেদন আবদার পেতেই থাকি, যেন তাদের বিবেচনায় গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নিয়ে কলাম লিখি। যেমন প্রিয়া সাহাকে নিয়ে তথা সংখ্যালঘুদের দেশান্তর নিয়ে লেখার জন্য অনেক অনুরোধ পেয়েছি, কিন্তু তা সম্ভব হলো না। কারণ, সমাজের অস্থিরতা অথবা অস্থির সমাজ, এ ব্যাপারে লিখতেই হবে। ২০১৬ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর আমার লেখা কলামের শিরোনাম ছিল ‘তরুণদের অনুভূতি নিয়ে আলোচনা’। সেখানে সমাজের মধ্যে মানুষে মানুষে সহনশীলতা, শ্রদ্ধাবোধ ও শান্তি নিয়ে আলোচনা করেছিলাম। ঢাকা মহানগরের গুলশানে হলি আর্টিজান নামক রেস্টুরেন্টে হামলা এবং মানুষ খুনের ঘটনা ঘটার কয়েক সপ্তাহ পর ওই কলাম লিখেছিলাম। সে সময় ‘জঙ্গিবাদ’ শব্দটি সবদিকে উচ্চারিত হচ্ছিল। এখন উচ্চারিত হচ্ছে সামাজিক অস্থিরতা, খুন-খারাবি, লুটপাট। এরূপ পরিস্থিতিতে সরকারি দল সমস্যাগুলোর জন্য বিএনপি-জামায়াতকে দায়ী করা উট পাখির ন্যায় আচরণের সাথে তুলনীয়। এই প্রসঙ্গে আগামী সপ্তাহের কলামেও লিখব বলে আশা রাখি। 
লেখক : মেজর জেনারেল (অব.); চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি 
www.generalibrahim.com.bd

By | 2019-07-31T00:30:45+00:00 July 31st, 2019|কলাম ও বার্তা|0 Comments

About the Author:

Leave A Comment